দ্রুত বাঁশের সাঁকো নির্মাণের আশ্বাস

প্রবল স্রোতে নতুন ব্লক ইটের রাস্তা ভেঙে গেল

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫৪ পিএম, রোববার, ৭ জুলাই ২০২৪ | ৩৩
যমুনা নদীর পানির প্রবল স্রোতে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে কয়েড়ায় নতুন ব্লক ইটের রাস্তাটি ভেঙে গেছে। ফলে কমপক্ষে কয়েকটি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ যাতায়াতে চরম জনদুর্ভোগে পড়েছেন।
 
গত শনিবার সন্ধ্যার দিকে পানির তীব্র স্রোতে রাস্তাটি ভেঙে যায়। পুরে মুহুর্তেই পুরো এলাকায় পানি প্রবেশ করে। এছাড়াও রাস্তাটির ভাঙন দেখতে উৎসুক জনতা ভিড় জমায়। 
 
এদিকে, কয়েড়ার রাস্তাটি ভেঙে যাওয়ার ফলে চর কয়েড়া, কয়েড়া, আকালু ও নলুয়া গ্রামসহ আরও বেশ কয়েকটি এলাকায় পানি প্রবেশ করছে। যার কারণে এসব এলাকার নিম্নাঞ্চলের রাস্তাগুলো পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। এরমধ্যে কয়েড়া এলাকার পুঁইশাক, ঢেঁড়শ, কাঁচা মরিচ, ধুন্দুল, কলমি শাকসহ বিভিন্ন ধরণের সবজি-ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে।
 
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের কয়েড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন কয়েড়া পূর্বপাড়া, দক্ষিণপাড়া, চর কয়েড়া, আকালু ও নলুয়া যাওয়ার একমাত্র সংযোগ রাস্তা। কয়েক মাস আগে রাস্তার পিচ উঠিয়ে যত্রতত্রভাবে ঠিকাদার ব্লক ইটের রাস্তা পাকাকরণের কাজ করে। এনিয়ে স্থানীয়রা ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
 
এছাড়া রাস্তাটিতে আগে বেশ কয়েকটি কালভার্ট থাকলেও জমির মালিকরা সেটি বন্ধ করে দেয়। যার ফলে অল্প পানি হলে রাস্তাটি তলিয়ে যায়। প্রতি বছর বন্যায় রাস্তাটি ভেঙে যায়। শনিবার সন্ধ্যার দিকে পানির ব্যাপক স্রোতের কারণে নতুন ব্লক ইটের রাস্তাটি প্রায় ১৫ মিটার অংশজুড়ে ভেঙে যায়। রাস্তাটি ভেঙে গেলেও এখন পর্যন্ত মানুষের যাতায়াতের ব্যবস্থা করা হয়নি।
 
স্থানীয় স্কুল শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক, সুমন সরকার, রাশেদ আলীসহ অনেকেই জানান, কালভার্ট না থাকায় প্রতি বছর বন্যায় রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে ও ভাঙন দেখা দেয়। ফলে বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষের যাতায়াতে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। বিশেষ করে স্কুল, মাদরাসা, কলেজগামীরা বেশি বিপাকে পড়েন। ভেঙে যাওয়া রাস্তাটি দ্রুত মেরামত করার জোর দাবি জানান তারা।
 
কয়েড়া ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রুবেল সরকার বলেন, রাস্তাটি ভেঙে যাওয়া যাতায়াতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ভাঙনের সঙ্গে সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউএনও মহোদয়কে অবগত করা হয়েছে। এছাড়াও একই গ্রামের উত্তরপাড়া জামে মসজিদের সামনেও আরও বেশি ভেঙেছে। আপাতত মানুষের যাতায়াতের জন্য অতি দ্রুতই বাঁশের সাঁকো নির্মাণের কাজ শুরু হবে।
 
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুনুর রশীদ জানান, গোবিন্দাসী কয়েড়া গ্রামের রাস্তাটি পানির স্রোতে ভেঙে যাওয়ার বিষয়টি জানতে পেরেছি। ভাঙনের কারণে কয়েক এলাকার মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। রাস্তাটি করে অতি দ্রুত বাঁশের সাঁকোর মাধ্যমে যাতায়াতের জন্য উপযোগী করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।