ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত ৬টি বহুতল ভবন উদ্বোধন আগামীকাল

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪০ পিএম, সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০২৩ | ১৮৭

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ৩৪৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ব্যয়ে টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নব-নির্মিত ৬টি বহুতল ভবন উদ্বোধন করবেন মঙ্গলবার(১৪ নভেম্বর)। ভবনগুলো উদ্বোধনের পর বিশ্ববিদ্যালয় পুর্ণাঙ্গ রূপ পাওয়ার পাশাপাশি শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগের অবসান হবে।

ছয়টি বহুতল ভবন প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের খবরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। বিশ্ববিদ্যালয়কে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা অংশগ্রহণ করবেন।

জানা যায়, মজলুম জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর অজীবন স্বপ্ন ছিল সন্তোষে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৯ সালের ১২ অক্টোবর টাঙ্গাইলের সন্তোষে ভাসানীর মাজার সংলগ্ন এলাকায় মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণে বরাদ্দ দেন বিপুল পরিমান টাকার। 

২০০৯ সালে আবারও আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত প্রচেষ্টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে আবারও উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় বিশ্ববিদ্যালয়ে একাধিক বহুতল ভবন নির্মাণ করা হয়। 

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের আওতায় ৩৪৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে ১০তলা বিশিষ্ট প্রশাসনিক ভবন, ১২তলা বিশিষ্ট একাডেমিক-কাম রিসার্চ ভবন, ১২তলা ভিতে ৬তলা পর্যন্ত শেখ রাসেল হল(৫৫০ ছাত্রের জন্য), ১০তলা বিশিষ্ট শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল(৭০০ ছাত্রীর জন্য), ১০তলা ভিতে পাঁচতলা পর্যন্ত সিনিয়র শিক্ষক ও কর্মকর্তা কোয়ার্টার এবং পাঁচতলা পর্যন্ত মাল্টিপারপাস ভবনের নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ মঙ্গলবার(১৪ নভেম্বর) ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে নব-নির্মিত ওই ছয়টি ভবন উদ্বোধন করবেন। 

বিশ্ববিদ্যায়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, মাত্র কয়েক বছর আগেও বিশ্ববিদ্যালয়ে পর্যাপ্ত ক্লাসরুম ছিল না। একাডেমিক ভবনের সংকট ছিল। টিনের ঘরে তাদের অনেক কষ্টে ক্লাস করতে হয়েছে। আধুনিক যন্ত্রপাতি সমৃদ্ধ ল্যাবের পর্যাপ্ত সুবিধা ছিলনা। ভবনগুলো উদ্বোধনের পর তাদের দীর্ঘদিনের সমস্যাগুলো দূর হবে। এজন্য তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ডক্টর মো. ফরহাদ হোসেন জানান, নতুন ভবনগুলো শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আবাসিক ও একাডেমিক ভবনের স্বল্পতার নিরসন হবে। এতে শিক্ষা ও গবেষণায় অভুতপূর্ব সাফল্য বয়ে আনবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রচেষ্টার কারণে স্বল্প সময়ে এ উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২৫ অক্টোবর ৩৪৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ব্যয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শক্তিশালীকরণ মেগা প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়।